Home / ডিজিটাল মার্কেটিং / কন্টেন্ট মার্কেটিং / ডিজিটাল কন্টেন্ট কি? কত প্রকার ও কি কি?

ডিজিটাল কন্টেন্ট কি? কত প্রকার ও কি কি?

আজকের আলোচনায় কনটেন্ট কি, কন্টেন্ট কত প্রকার এবং কোন কনটেন্ট কি এবং কন্টেন্ট কিভাবে কাজ করে সেই সব বিষয়ে পরিষ্কার ধারণা নিব।

ট্র্যাডিশনাল মার্কেটিং এ আমরা কি কখনো দেখেছি মার্কেটিং রিপ্রেজেন্টিভরা  কা মার্ককেটারা সরাসরি পণ্য কিনার জন্য বলে যে এই পণ্যটি ভাল এই পণ্যটি নেন?

নিশ্চয় না।

তাঁরা প্রডাক্টটি কাউকে নেওয়ার কথা বলার আগে আগে সেই পণ্যের গুনাগন বলে, পণ্যটি আপনার কি উপকারে আসবে সেই বিষয়ে আলোকপাত করে, পণ্যটির বিভিন্ন সুবিধার কথা বলে তারপর তাঁরা পণ্যটি নেওয়ার আহবান জানাবে । কি তাই তো?

তেমনি ভাবে ডিজিটাল মার্কেটিং ও আপনি কাউকে আপনার চ্যালনেলগুলিতে কোন পণ্য বা সেবা নেওয়ার কথা সরাসরি বলতে পারবেন না।

আর গুগল বা বিভিন্ন সার্চ ইঞ্জিন তো কখনোই এমনি এমনি আপনার ওয়েবসাইটে কোন ইউজারকে রেফার করবে না ।

আর রেফার করার জন্য প্রয়োজন “ কনটেন্ট”।

বিশেষ করে যারা এসইও, এফিলিয়েট মার্কেটিং বা গুগল এডসেন্স নিয়ে কাজ করেন তাদের জন্য তো এই কনটেন্ট খুবই জরুরী।

এখন প্রশ্ন আসে

কনটেন্ট কি?

এক কথাই যদি বলিঃ কনটেন্ট হচ্ছে ডিজিটাল চ্যানেলগুলিতে উপস্থাপন বা পোস্টিং এর রসদ বা ম্যাটেরিয়ালস।

আরো ভাল ভাবে বললে- কনটেন্ট হচ্ছে কোন পণ্য বা সেবা বা কোন নির্দিষ্ট কীওয়ার্ডের বিস্তারিত সাজানো উপস্থাপনা।

 

আপনি যদি কোন পণ্য বিক্রি করতে চান তাহলে সেই পণ্যের সুবিধা, অসুবিধা, গুনাগুন তুলে ধরবেন। আপনি যদি কোন সেবা দাতা হয়ে থাকেন তাহলে আপনি কিভাবে সেবা প্রদান করবেন সে বিষয়ে বিস্তারিত তুলে ধরবেন।

অথবা আপনি যদি এফিলিয়েট বা ব্লগিং করতে চান যে কীওয়ার্ড নিয়ে কাজ করেন সেই বিষয়ের বিস্তারিত বিষয়বস্তু তুলে ধরবেন্।

 

চলুন দেখা যাক এই কনটেন্ট কি কি ধরণের হতে পারে?

কনটেন্ট সাধারণত ৪ ধরণের হয়ে থাকে।

ডিজিটাল কনটেন্টঃ১ :  টেক্স কনটেন্ট

টেক্স কনটেন্ট হচ্ছে আপনি যা লিখে বা টাইপ করে বুঝাতে পারেন। আপনি যে এই লিখাটি পড়ছেন এটা একটি ডিজিটাল মার্কেটিং এর টেক্স কনটেন্ট এর উদাহরণ।

একই ভাবে আপনি নির্দিষ্ট কোন কীওয়ার্ড এর বিষয়ে লিখে উপস্থাপন করাই হচ্ছে ডিজিটাল টেক্স কনটেন্ট।

 

ডিজিটাল কনটেন্টঃ২ :  ইমেজ কনটেন্ট

আপনি আপনার কোন পণ্য বা সেবার ফটোগ্রাফি তুলে ধরলেন অথবা কোন তথ্যের কোন গ্রাফিক্যাল ভিউ তুলে ধরলেন। এটাই হচ্ছে ডিজিটাল ইমেজ কনটেন্ট।

ডিজিটাল কনটেন্টঃ৩ :  অডিও কনটেন্ট

অডিও কনটেন্ট হচ্ছে কোন কিছু বলে বা সাউন্ড দিয়ে বুঝানো। যত কিছু মিউজিক আছে সেটা সবই ডিজিটাল অডিও কনটেন্ট। আমরা যে রেজিও শুনি সেটা ডিজিটাল অডিও কনটেন্ট মার্কেটিং এর উদাহরণ।

ডিজিটাল কনটেন্টঃ৪ :  ভিডিও কনটেন্ট

ভিডিও কনটেন্ট হচ্ছে যেকোন ধরণের ভিডিও গ্রাফি। ইউটিউব হচ্ছে সবচেয়ে জনপ্রিয় ডিজিটাল ভিডিও কনটেন্টের উদাহরণ।

অনলাইনে যত প্রকার ভিডিও আছে সব কিছুই ভিডিও কনটেন্ট।

 

কনটেন্ট হচ্ছে কোন কিছু নিয়ে উপস্থাপন। ডিজিটাল কনটেন্ট হচ্ছে অনলাইনে কোন কিছু নিয়ে উপস্থাপন করা। সেটা অডিও ভিডিও, ইমেজ, বা টেক্সের মাধ্যমে হতে পারে। এনিমেশন কনটেন্টও কিন্তু ভিডিও কনটেন্টের মধ্যে পড়ে।

আশাকরি আজকের আলোচনায় কনটেন্ট কি, কত প্রকার এবং কোন কনটেন্ট কি এবং কিভাবে কাজ করে সেই সব বিষয়ে পরিষ্কার ধারণা হয়ে গেছে

কোন প্রশ্ন বা মতামত থাকলে জানাবেন।

ই-মেইল মার্কেটিং এর জন্য খুব অল্প সময়ে প্রচুর ইমেইল কালেকশনের পদ্ধতি জানতে নিচের ছবিতে ক্লিক করুন।

ইমেইল কালেকশন পদ্ধতি - ডিজিটাল মার্কেটিং টিপস